মতামত

বিচারহীনতার আবর্তে অ্যাসিড সন্ত্রাস

সংবাদে প্রকাশ এখন পর্যন্ত অ্যাসিড সন্ত্রাসের ঘটনায় প্রতি চার জন আসামীর তিন জনই খালাস পেয়েছেন। অর্থাৎ বলা চলে চার জন আক্রান্ত নারীর তিন জনই বিচার পাননি। ২০০২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ১৪ বছরে এই হলো এ ক্ষেত্রে বিচারহীনতার পরিসংখ্যান। যদিও অ্যাসিড অপরাধ আইন ২০০২ অনুযায়ী এসব মামলার বিচারের কাজ ৯০ দিনের মধ্যেই শেষ করার বাধ্যবাদধকতা ছিল।
অন্যদিকে এই ১৪ বছরে অ্যাসিড সন্ত্রাসের মামলায় ১৪ জনের মৃত্যুদন্ড হলেও কার্যকর হয় নি একটিও। অর্থ হলো বিচারহীনতা যেমন রয়েছে, তেমনি বিচারের রায় কার্যকর না করারও সংস্কৃতি বিদ্যমান। পরিসংখ্যান বলছে, এ সময়ে সারা দেশে মামলা হয়েছে ২ হাজার ৫৭টি। অভিযোগ প্রমাণিত হয় নি দাবি করে পুলিশ অভিযোগপত্র দিয়েছে ৮২২টি মামলায়। ৪৬৯ টি মমলা আবার মূলতবি রাখা হয়েছে। মামলাগুলোয় মোট আসামী ছিল পাঁচ হাজারের বেশি। এর মধ্যে গ্রেপ্তার হয় মাত্র ১২ শতাংশ অর্থাৎ ধারা ছোঁয়ার বাইরে থেকে যায় ৮৮ শতাংশ। এ ভাবেই অপরাধ প্রশ্রয় পায়, বিশেষ করে অ্যাসিড সন্ত্রাসের মত বর্বর মর্মান্তিক ঘটনাগুলো হ্রাস পাওয়ার বদলে বাড়তে থাকে।
এ মাসেই প্রকাশিত বিবিএস এর জরিপ জানাচ্ছে, বিবাহিত নারীদের ৮০ শতাংশই নির্যাতনের শিকার। অ্যাসিড সন্ত্রাসেরও মূলভুক্ত ভোগী নারী। বর্তমানে দেশের প্রায় অর্ধেক জনশক্তিই নারী। যে দেশের প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেতা, জাতীয় সংসদের স্পিকার সবাই নারী, সে দেশেই নারীদের ওপর এমন বর্বরোচিত আক্রমন কীভাবে সম্ভব! ! কঠোর আইন থাকার পরও অধিকাংশ ঘটনার বিচার না হওয়া, বিচারে অধিকাংশ আসামীর খালাস পেয়ে যাওয়া, যে মুষ্টিমেয় মামলার রায় হয়েছে তারও রায় কার্যকর না হওয়া- এসবের অর্থ কী!

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

সম্পাদক:

বিপুল রায়হান

১৩/২ তাজমহল রোড, ব্লক-সি, মোহাম্মদপুর,ঢাকা-১২০৭, ফোন : 01794725018, 01847000444 ই-মেইল : info@jibonthekenea.com অথবা submissions@jibonthekenea.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত জীবন থেকে নেয়া ২০১৬ | © Copyright Jibon Theke Nea 2016

To Top
Left Menu Icon
Right Menu Icon