অর্থনীতি

ভর্তুকি ছাড়াই এলপিজির দাম হবে ৭০০ টাকা

তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসে (এলপিজি) ভর্তুকি দেওয়ার পরিকল্পনা বাতিল করেছে সরকার। তবে পণ্যটির দাম কমানোর জন্য সরকার এমন একটি কৌশল নির্ধারণ করবে যাতে গ্রাহকরা ৭০০ থেকে ৮০০ টাকায় ১২ কেজির সিলিন্ডার কিনতে পারবেন।

এই খাতের নীতি নির্ধারকরা মনে করছেন ভর্তুকি দেওয়া হলে তা নতুন জটিলতা তৈরির সঙ্গে সঙ্গে দুর্নীতির আরেকটি উৎসে পরিণত হবে।

উল্লেখ, গৃহস্থালী কাজে পাইপলাইনের গ্যাস ব্যবহারের পরিবর্তে এলপিজি ব্যবহারকে উৎসাহিত করতে কয়েকদিন আগে সরকারের তরফ থেকে এই খাতে ভর্তুকি দেওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়।

তবে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ গতকাল শনিবার বার্তাসংস্থা ইউএনবিকে জানান, এলপিজিতে ভর্তুকি দেওয়ার যে পরিকল্পনা সরকার নিয়েছিল তা বাতিল করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এলপিজিতে ভর্তুকি না দিয়ে এর দাম কমানো ভিন্ন একটি কৌশল নির্ধারণে আমরা কাজ করছি। আশা করি সেই কৌশল বাস্তবায়ন হলে গ্রাহকরা কম দামে এই গ্যাস পাবেন।

মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, দাম কমানোর কৌশল বাস্তবায়ন হলে গ্রাহকরা ১২ কেজি এলপিজি কিনতে পারবেন মাত্র ৭০০ থেকে ৮০০ টাকার মধ্যে।

বর্তমানে ১২ কেজির এক সিলিন্ডার গ্যাসের জন্য গ্রাহকদের ১৪০০ টাকার বেশি গুণতে হয়।

মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, সরকারের নীতি নির্ধারকদের একটি অংশ মনে করছেন ভর্তুকি দিলে দাম কমার পরিবর্তে এই খাতে নতুন নৈরাজ্য সৃষ্টি হতে পারে। এটি দুর্নীতির নতুন উৎসে পরিণত হতে পারে।

তাই তাদের পরামর্শেই সরকার এই খাতে ভর্তুকি দেওয়ার পরিকল্পনা বাতিল করেছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

এছাড়া আগে বিভিন্ন খাতে ভর্তুকি দেওয়ার অভিজ্ঞতাও ভালো নয় বলে জানান তিনি।

এদিকে মন্ত্রীর ঘোষণা মতো একটি মনিটরিং নিয়ন্ত্রক সংস্থা আসলে কবে নাগাদ গড়ে উঠবে বা কবে নাগাদ কাজ শুরু করবে তা এখনও বলা যাচ্ছে না বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরেক কর্মকর্তা ইউএনবিকে জানান, এই ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের জ্বালানি বিভাগ এলপিজি সরবরাহকারীদের নিয়ে সম্প্রতি একটি বৈঠক করে। সেখানে এলপিজি সরবরাহকারীদের সঙ্গে বাজার তদারকির একটি পরিকল্পনা করা হয়।

সেই পরিকল্পনা অনুসারে সরবরাহকারীরা খুচরা পর্যায়ে এলপিজির দাম নির্ধারণ করে তা সিলিন্ডারে লেখার বিষয়ে মত দেন। তবে তাদের পক্ষ থেকে এও বলা হয় যে, এই পরিকল্পনা মুক্তবাজার অর্থনীতিকে ব্যহত করবে।

এদিকে দাম নিয়ন্ত্রণের কৌশল প্রণয়নে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি করা হয়েছে। সেই কমিটি একটি জরিপে দেখেছে সবগুলো এলপিজি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান অনেক বেশি দামে সিলিন্ডার ভর্তি গ্যাস বিক্রি করছে।

কাজী জেবুন্নেছা বেগমের নেতৃত্বে গঠিত ওই কমিটি দেখেছে সাড়ে ১২ কেজি এলপিজি গ্যাসের দাম কোনো মতেই সরকারিভাবে ৭০৩ টাকা এবং বেসরকারিভাবে ৭৩২ টাকার বেশি হওয়া উচিত নয়।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

সম্পাদক:

বিপুল রায়হান

১৩/২ তাজমহল রোড, ব্লক-সি, মোহাম্মদপুর,ঢাকা-১২০৭, ফোন : 01794725018, 01847000444 ই-মেইল : info@jibonthekenea.com অথবা submissions@jibonthekenea.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত জীবন থেকে নেয়া ২০১৬ | © Copyright Jibon Theke Nea 2016

To Top