অর্থনীতি

এক হাজার এমবিপিএস ইন্টারনেট নিয়ে আসছে র‌্যাংকসটেল

প্রতিযোগিতামূলক বাজারে পিএসটিএন লাইসেন্সধারী বেসরকারি অপারেটর র‌্যাংকসটেলের দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা চালু করা সরকারি প্রতিষ্ঠান বিটিসিএল’র জন্য চ্যালেঞ্জ বলে মনে করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ এক হাজার এমবিপিএস (মেগাবাইট পার সেকেন্ড) গতির ইন্টারনেট সেবা নিয়ে ফের যাত্রা শুরু করেছে পাবলিক সুইচড টেলিফোন নেটওয়ার্ক (পিএসটিএন) অপারেটর র‌্যাংকসটেল।

র‌্যাংকসটেলের এই সেবা ইন্টারনেট ব্যবহারের অভিজ্ঞতাই বদলে দেবে বলে আশা করছে অপারেটরটি। তারা বলছে, অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে কানেক্ট করা করপোরেট গ্রাহকদের জন্য প্রাথমিকভাবে এই সেবা দেওয়া হলেও আগামী ২-৩ মাসের মধ্যে সাধারণ গ্রাহকদের জন্য তা উন্মুক্ত করা হবে।
র‌্যাংকসটেলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম আশিকুর রহমান বলেন, ভয়েস, ডাটা ও ডিভাইস কানেকটিভিটির দিক থেকে নতুন নতুন ফিচার সমৃদ্ধ সেবা নিয়ে আমরা গ্রাহকের কাছে পৌঁছাতে চাই।

রোববার (৮ জানুয়ারি) রাজধানীর হোটেল র‌্যাডিসানে র‌্যাংকসটেলের নতুন সেবা ও লোগো উন্মোচন করেন প্রতিমন্ত্রী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তারানা হালিম বলেন, আমি বলবো পিএসটিএন লাইসেন্সধারী হিসেবে বিটিসিএল’র জন্য এটি চ্যালেঞ্জ।

“আজকে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে র‌্যাংকসটেল দ্রুতগতির ইন্টারনেট নিয়ে আসছে। আমি বলবো পিএসটিএন লাইসেন্সধারী হিসেবে বিটিসিএল’র জন্য এটি চ্যালেঞ্জ। তবে বিটিসিএল এবং র‌্যাংকসটেল প্রতিযোগিতামূলক বাজারে উভয়ই প্রতিযোগিতা করে মানসম্মত সেবা প্রদান করবে- এটি আমাদের কামনা”।

তারানা হালিম বলেন, প্রতিযোগিতামূলক বাজারে র‌্যাংকসটেল আসছে, আমি মনে করি বিটিসিএলও তাদের মান উন্নত করার প্রয়াস পাবে।

ইতোমধ্যে ২৯০টি উপজেলা এবং এক হাজার ইউনিয়নে অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে সংযোগ দিচ্ছি এবং কিছু প্রকল্প চলমান রয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান একসঙ্গে কাজ করছি।

বর্তমানে ইন্টারনেট পেনিট্রেশন ৩৯ শতাংশ উল্লেখ করে তারানা হালিম বলেন, ২০২০-২১ সালে এই টার্গেট ৪০ শতাংশ, ২০২৫ সালে টার্গেট ৬০ শতাংশ। কাজেই আমাদের টাইম বাউন্ড টার্গেট নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে।

র‌্যাংকসটেলের যাত্রাকে স্বাগত জানিয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, এর মধ্য দিয়ে নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হলো। আশা করি তারা মানদণ্ড বজায় রাখবে।

তিনি বলেন, পিএসটিএন লাইসেন্সধারী ১৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাত্র দু’টি টিকে আছে। নতুন কিছু না করলে টিকে থাকা যাবে না। টেলিকম সেক্টরে চিন্তা করতে হবে কিভাবে ডাটাকে সংযুক্ত করা যায়।

তবে শুধু টেকনোলজির দিকে না তাকিয়ে ভবিষ্যতে আর্থ-সামাজিক অবস্থার দিকে নজর রেখে পলিসি নির্ধারণ করতে হবে বলে মনে করেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ বলেন, উইন উইন সিচুয়েশনে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে থাকতে হবে।

র‌্যাংকসটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও রেনকন এন্টারপ্রাইজের চেয়ারম্যান রোমো রউফ চৌধুরী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

সম্পাদক:

বিপুল রায়হান

১৩/২ তাজমহল রোড, ব্লক-সি, মোহাম্মদপুর,ঢাকা-১২০৭, ফোন : 01794725018, 01847000444 ই-মেইল : info@jibonthekenea.com অথবা submissions@jibonthekenea.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত জীবন থেকে নেয়া ২০১৬ | © Copyright Jibon Theke Nea 2016

To Top